Nobody is perfect
Skip to toolbar

এই আমি

আকাশের রক্তবর্ণের চাঁদের দিকে তাকিয়েছিলাম। আর অবাক হয়ে ভাবছিলাম , কত দ্রুত একটা জীবন বদলে যায় ! দুদিন আগেও চাঁদটকে দেখে মোহগ্রস্ত হয়ে গিয়েছিলাম । পুঞ্জ পুঞ্জ মেঘ , সেই চমৎকার আলো-আঁধারের মিশ্রন, রাত্রির অসম্ভব নিস্তব্ধতা ,মাঝে মাঝে একটু হিমশীতল বাতাসে যেন আমাকে দূরে কোন এক অজানা দেশে কল্পিত স্বর্গে নিয়ে গিয়েছিল ! সব মিলিয়ে মূহুতটি ভুলবার মত নয় । আমি এখানে নাদিরার জন্য এসেছিলাম । এই জায়গাটি তার খুব প্রিয়। কিন্তু জানি, আজ আসবে না । কোন এক অজানা রাজ্যে হারিয়ে গেছে । দু’দিন আগের সেই মোহগ্রস্ত চাঁদটি আজ কেমন মলিন হয়ে গিয়েছে । প্রাণহীন এই জড় বস্তুটাকে আজ ভয়ঙ্কর এক রাক্ষস মনে হচ্ছে ।এখন সে তার সব সৌন্দর্য হারিয়ে ,কেমন এক হাস্যকর বস্তুতে পরিণত হয়েছে । ঠিক যেন আমার মত !

৩৭ টি মেডেল পাওয়া , ১৯ টি পুরস্কার ও অসংখ্য ক্রেস্ট পাওয়া ছেলেটিকে দেখে মনে হবে , জীবনে বেঁচে থাকার কোনো আসা , বিন্দুমাত্র ইচ্ছা তার ভেতর অবশিষ্ট নেই । সমস্ত শক্তি- সাহস , স্বপ্ন-ভালবাসা , সব হারিয়ে গেছে । কেনই বা এমন হবে না ? জীবনে অসংখ্য গল্প-কবিতায় এমন করুণ পরিণতি সে দেখেছে । কিন্তু কখনো অনুভব করতে পারে নাই , ঠিক যেমনটি আমরা পারিনা । ক্লাস 1 থেকে 9 পর্যন্ত প্রতিটি পরীক্ষায় ফার্স্ট হয়েছে । কিন্তু ক্লাস টেনে পর পর দুই বার ফেল করায় , স্কুলের নিয়ম অনুযায়ী তাকে বের করে দেওয়া হয়েছে ।এখন সে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় , সময়ের সাথে ছেলেখেলা করে, আর নিজেকে দেখে হাসে । কি বিচিত্র মানুষের জীবন , তাই না ?

সাত বছর বয়সে আমি মাকে হারিয়েছি । বাবা আমাদের ছেড়ে চলে গিয়েছিল অনেক আগেই ।এরপর হঠাৎ একদিন সড়ক দুর্ঘটনায় মা আমার কাছ থেকে বিদায় নিলো । আর আমি অতীতের সব স্মৃতি হারিয়ে ফেলি । আমার ব্রেন খুব খারাপভাবে জখম হয়েছিল । কিন্তু মোটামুটি তিনটি অস্ত্রোপচারের করার পর ১১ মাসের মাথায় , আমি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে পাই । আমাকে নিয়ে যাওয়া হয় এক অনাথ আশ্রমে । সেখানেই দু বছর ছিলাম । এরপর একদিন আমাকে জানানো হয় আমি সুস্থ হয়ে উঠেছি , আমি যদি চাই তবে আবার পড়াশোনা করতে পারব । সম্পূর্ণ খরচ দিবে কিছু অভিজাত আন্তর্জাতিক মানব কল্যাণ সংস্থা । কিন্তু তার জন্য এখান থেকে ১৩০ কিলোমিটার দূরের এক শহরে যেতে হবে । আমি রাজি হয়ে যাই । সেখানেই তার সাথে দেখা , তার সাথে কথা হয় ।সেই নিষ্পাপ চেহারা , বুদ্ধিদীপ্ত চাহনি আমি ভুলতে পারি না এখনো । ভেবেছিলাম তাকে আঁকড়ে ধরে সারাটা জীবন পার করে দিতে পারব । কিন্তু , সে কথা রাখেনি। আমাকে ছেড়ে চলে যাবে না বলেও , চিরতরে চলে গিয়েছে । সে মিথ্যাবাদী,প্রতারক !

ALSO READ  THE HATE YOU GIVE

শাঁ শাঁ করে বাতাস বইছে । মাঝে মাঝে দূরের কিছু তারা মিটি মিটি করে জ্বলছে । এই দিগন্তহীন আকাশের দিকে তাকিয়ে আছি ।এখন আমার আকাশে দুটি বস্তু । একটি পূর্নিমার চাঁদ ,অন্যটি ম্রিয়মাণ তারা । আমি জীবনের সব দুঃখ-কষ্ট , বেদনা , না পাওয়াগুলোকে মনের গভীর অন্তরালে রেখে, সেই পূর্ণিমার চাঁদের দিকে ছুটছি , এক নতুন আলোর সন্ধানে ।

লেখক : আহনাফ লাবীব ।

More From Author

    None Found

What’s your Reaction?
+1
+1
13
+1
4
+1
+1
26
+1
+1
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x