। ১।
ডিরেক্টরের মুখে লাইট, ক্যামেরা, অ্যাকশন শুনে অভিনয় শুরু করলো নায়ক স্বপ্নীল। এই দৃশ্যে তার কথা হবে বৃদ্ধ শফিকের সাথে যে তার বাবা চরিত্রে অভিনয় করছে।


স্বপ্নীল আর শফিকের কথোপকথন শুরু হয়েছে,


–বাবা, তোমার এই অবস্থা কে করেছে? তুমি রাস্তায় ভিক্ষা করছো কেন?
– বাবারে! তোর বড় ভাই আমাকে তাড়িয়ে দিয়েছে।
– আমি কি মরে গেছি, বাবা? আমার কাছে আসো নি কেনো?
– (ক্রন্দন রত অবস্থায়) বাবারে, তোকে আমি কষ্ট দিতে চাই নি।
– বাবা, কষ্ট কিসের! তুমি তোমার ছেলের কাছে থাকবে। বাবা মনে রেখো, তোমার এই ছেলে যতদিন আছে ততদিন আর তোমাকে কষ্ট করতে হবে না।


কেঁদে কেঁদে স্বপ্নীল জড়িয়ে ধরে শফিককে।


ডিরেক্টরের কাট শব্দে দৃশ্যের শেষ হয়। ডিরেক্টরের কাছ থেকে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য প্রশংসাও পায় স্বপ্নীল । আসলেই চরিত্রের ভিতরে ডুবে যেতে পারে সে।


। ২।
রাতে বাড়িতে ফিরার সময় গেটের ডাকবাক্সে দেখে একটা চিঠি। চিঠি খুলে দেখে লেখা, “বাবা স্বপ্নীল, এই বার ঈদে বৃদ্ধাশ্রমে আমাকে একটু দেখতে আসবি? তোকে দেখতে অনেক ইচ্ছা করছে।”


স্বপ্নীল চিঠিটা মুচড়ে ডাস্টবিনে ফেলে দিয়ে মনে মনে বললো, ” এই বুড়ার জ্বালা কোন দিন যে শেষ হবে!”

Written By : Rifat Raiyan

Institution : Shahjalal University of Science and Technology

What’s your Reaction?
+1
+1
8
+1
+1
+1
49
+1
+1
Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments
0
Would love your thoughts, please comment.x
()
x